দ্য অ্যাপল কার্ট (পর্ব-৩)


bshপর্ব-১।। পর্ব-।।

জর্জ বার্নার্ড শ

অনুবাদ : কামাল রাহমান

[প্লিনি, ব্যালবাস ও ক্র্যাসাস প্রায় একসঙ্গে প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করবে]
প্লিনি: না, এটা করবেন না, জো।
ব্যালবাস: কি! এখনি! আপনি তা পারেন না। অবশ্যই পারেন না।
ক্র্যাসাস: অবশ্যই না। প্রশ্নই আসে না।
প্রো: বৃথাই সবকিছু [উঠে দাঁড়িয়ে] আমি পদত্যাগ করলাম, এই বলছি আপনাদের কাছে। শয়তানের দরবারে যেতে পারেন সবাই। আমার স্বাস্থ্য নষ্ট করে ফেলেছি আমি, বেঁচে থাকার সব কারণও হারিয়ে ফেলেছি, এই পরিষদকে একত্রিত রাখার চেষ্টা করে, সেই সব ধূর্ততম শত্র’দের হাত থেকে জনপ্রিয় সরকারকে রক্ষা করতে, যে কিনা কখনো তাদের মুখোমুখি হয় নি। যথেষ্ট হয়েছে আমার এসব [আবার বসে] আমি পদত্যাগ করলাম।
ক্র্যাসাস: কিন্তু এ রকম একটা মুহূর্তে না, একটা স্রোতধারা পেরোনোর সময় ঘোড়া বদলাতে বলবেন না।
নিকো: কেন নয়? যদি ঐ সময় আপনার ঘোড়াটার খিচুনি রোগ ধরে?
বোনা: উল্লেখ করা দরকার নেই যে একের অধিক ঘোড়া থাকতে পারে আপনার অধিকারে।
প্রো: ঠিক বলেছেন। একেবারে সত্যি কথা। আমার আসনটা গ্রহণ করুন, নিক। আপনার জন্যও এটা শূন্য রইল, বিল। আমার ইচ্ছা এটা উপভোগ করুন আপনি।
প্লিনি: এখন বালকেরা, বালকেরা, বালকেরা: শান্ত হও। ম্যাগনাস ভেতরে আসার আগে আরেকটা নতুন পরিষদ সৃষ্টি করতে পারি না আমরা। আপনার পকেটে কিছু একটা আছে, জো। বের করুন ওটা, পড়ে শোনান ওদের।
প্রো: [এক টুকরো কাগজ পকেট থেকে বের করে] আমি যা প্রস্তাব করতে যাচ্ছি- এবং আপনি এটা গ্রহণ করতে পারেন, অথবা নাও পারেন- তা হচ্ছে একটা চরমপত্র।
ক্র্যাসাস: ভালো!
প্রো: হয় এটায় স্বাক্ষর করবেন তিনি, নাহয় [তাৎপর্যপূর্ণভাবে বিরতি দেবেন] !
নি: নাহয় কি?
প্রো: [বিরক্তিভাব প্রকাশ করে] ওহো, তুমি অসুস্থ করে তুলেছ আমাকে।
নি: এখনো তো অসুস্থ আপনি, আপনার নিজের কথা-মতই। আমি শুধু জিজ্ঞেস করেছি, ধরুন তিনি আপনার চরমপত্র স্বাক্ষর করতে অস্বীকৃতি জানালেন?
প্রো: একজন মন্ত্রী হিসেবে নিজেকে জানেন আপনি, আর এটার জবাব জানেন না?
নি: না, আমি জানি না। আবারও করছি আমার প্রশ্নটা। আপনি বললেন, অবশ্যই স্বাক্ষর করতে হবে তাঁর, না হয়, আমি জিজ্ঞেস করেছিÑ না হয় কি?
প্রো: না হয় পদত্যাগ করব আমরা, এবং দেশবাসীকে জানিয়ে দেব যে আমাদের দায়িত্বকে খর্ব করে এমন সব শর্তে রাজার শাসনব্যবস্থা চালিয়ে যেতে পারি না আমরা।
ব্যাল: কাজ হবে এটায়। এর মুখোমুখি হতে পারবেন না তিনি।
ক্র্যাসাস: হ্যাঁ, তাঁকে ফোকলা করে দেবে এটা।
প্রো: এটা কি সমর্থিত?
[প্লিনি, ক্র্যাসাস ও ব্যাল একসঙ্গে]: হ্যাঁ, হ্যাঁ, হ্যাঁ, সমর্থিত, সমর্থিত, সমর্থিত।
বোনা: খোলা মনে থাকছি আমি। আসুন চরমপত্রটা শুনে নেই আমরা।
নি: হ্যাঁ, আসুন এটা শুনি আমরা।
প্রো: সমঝোতার স্মারকলিপিতে উপনীত হওয়া গেল যে–
(রাজার প্রবেশ। বামে এমান্ডা, পোস্টমাস্টার জেনারেল, একজন হাসিখুশি মহিলা, পরনে পুরুষের মত পোশাক। ডানে লীসিসত্রাতা, পাওয়ার-মাস্টার জেনারেল, গম্ভীর প্রকৃতির মহিলা, পরনে প্রাতিষ্ঠানিক লম্বা পোশাক। সবাই উঠে দাঁড়াবে। প্রধানমন্ত্রীর মুখ কালো হয়ে যাবে।)
ম্যাগ: স্বাগতম, ভদ্রমহোদয়গন। আশা করি বেশি আগে এসে যাই নি [প্রধানমন্ত্রীর গোমড়া মুখ লক্ষ্য করে] অনাহুতভাবে এসে গেলাম নাকি?
প্রো: প্রতিবাদ জানাই আমি, এটা সহ্য করা যায় না। আমার মন্ত্রীপরিষদের একটা অধিবেশন ডেকেছি বিশেষ অধিকার বিষয়ে আমাদের অবস্থান বিবেচনা করার জন্য, আর এখন দেখি আমাদের সঙ্গে পরামর্শ করার পরিবর্তে মাননীয় রাজা দুই মহিলা সদস্য বগলদাবা করে এর মধ্যে নিয়ে এসেছেন।
লীসিসত্রাতা: নিজের কাজ করুন, জো।
ম্যাগ: আহ্ না: ঠিক না, ঠিক না, প্রিয় লীসিসত্রাতা, ওপথে অবশ্যই এগোনো উচিত না তোমার। আমাদের কাজ হচ্ছে সবার কাজে হস্তক্ষেপ করা। পেশাগত কারণেই প্রধানমন্ত্রী একজন ব্যস্ত মানুষ। একজন রাজাও তাই। এবং আমরা সবাই।
লীসিসত্রাতা: ঠিক আছে, ওরা বলে সবার কাজ হচ্ছে, কারোই কাজ না, এবং যেটার জন্য জো-ই একমাত্র উপযুক্ত [দেয়ালের কাছ থেকে শক্ত হাতে হালকা কিছু উঠিয়ে নেয়ার মত একটা চেয়ার টেনে নেবে, স্যামের টেবিলের ভেতরের দিকের কোনার কাছে নিয়ে সামনের দিকে দোলাতে থাকবে, দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করবে রাজার বসার জন্য।]
প্রো: এটাকে আমার উপস্থাপন করতে হচ্ছে যখন মানসিক বিপর্যয়ের শেষ প্রান্তে পৌঁছে গেছি। [প্রায় উন্মত্তের মত চেয়ারে বসে দু’হাতে মুখ ঢেখে ফেলবে।]
এমান্ডা: [কাছে যেয়ে ও আদর করে মুখ থেকে হাত সরিয়ে দিয়ে] আসুন, জো। নাটক করবেন না। আপনিই ডেকেছেন সবাইকে, জানেন এটা।
নিকো: ওরকম একটা বিষয় নিয়ে লিজিকে রাগাতে যান কেন? জানেন তো এমনিতেই ছিট আছে ওর মাথায়।
লীসিসত্রাতা: আমার মেজাজে কি ভুল আছে, না নাই, তাতে কিছু আসে যায় না। জো’র কোনো উদ্ভট আচরণ প্রশ্রয় দিতে যাচ্ছি না আমি, দুঃখিত। যত তাড়াতাড়ি নিজেকে সংযত করবেন তিনি তত তাড়াতাড়ি অধিবেশন শুরু করতে পারব আমরা।
বোনা: প্রতিবাদ করছি আমি। আমি বলি, প্রথমে মর্যাদাবান হই আমরা। আমি বলি, নিজেদের সম্মান দেই, এবং সিংহাসনকে সম্মান দেই। আমরা সবাই, জো এবং বিল, নিক ও লিজি: মাছ ও আলু ভাজা বিক্রয়ের একটা দোকানের ভেতর থাকতে পারতাম আমরা। প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী, তিনি জো ন’ন। পাওয়ার মিনিস্টার লিজি ন’ন: তিনি হচ্ছেন: লীসিস-ট্রেইটর।
লীসিসত্রাতা: [ঘটনাক্রমে স্কুলের একজন শিক্ষয়িত্রী ছিলেন তিনি] অবশ্যই না বিল। তিনি হচ্ছেন লী… সিস… ত্রাতা। আপনার বরং লিজিই বলা উচিত: এটার উচ্চারণ সুবিধেজনক।
বোনা: [অবজ্ঞা দেখিয়ে] লী… সিস… ত্রাতা! এমন বোকা ভণ্ডামি এর আগে কখনো শুনি নি আমি: তাহলে এভাবেও আমাকে ডাকতে পারতেন আপনি: বো… এনার্জিস [চেয়ারের পেছনদিকে এলিয়ে দেবেন নিজেকে।]
ম্যাগ: [মিষ্টি করে] আমরা কি বসবো, ভদ্রমহিলা ও মহোদয়গণ?
[তড়িৎ গতিতে উঠে পড়ে আবার বসে যাবে বোনা। প্লিনির চেয়ারে বসবেন রাজা। লী ও অন্যান্য সবাই নিজ নিজ চেয়ারে বসবে। প্লিনি ও এমান্ডার বসার জায়গা থাকবে না। দু’হাতে দুটো চেয়ার নিয়ে রাজা ও প্যামের টেবিলের মাঝখানে পাশাপাশি ওগুলোকে বসাবে এমান্ডা।]
এমান্ডা: তুমি ওখানে, প্লিনি। [টেবিলের কাছে বসবে এমান্ডা।]
প্লি: টা টা, ম্যান্ডি। মাপ কর: আমার এমান্ডা বলা উচিত ছিল। [রাজার পাশের চেয়ারে বসবে]
এমান্ডা: ওটা উল্লেখ করে না, ডার্লিং।
বোনা: অর্ডার, অর্ডার।
এমান্ডা: [একটা চুমোর ভঙ্গি দেবে ওকে] !!
ম্যাগ: প্রধানমন্ত্রী: এই শব্দটা আপনার সঙ্গে রয়েছে। আপনাদের প্রাতিষ্ঠানিক অধিকারে হস্তক্ষেপ করার সুযোগ কেন আপনারা সবাই এত মহানন্দে আমাকে দিয়েছেন?
লী: আমারও কি ঐ অধিকারটি আছে, স্যার; না আমার নেই?
ম্যাগ: নিঃসন্দেহে আছে।
লী: শুনতে পেরেছেন তো জো?
প্রো: আমি-
ব্যাল: আহ্, স্বর্গের দোহাই ওর সঙ্গে বিরোধে যাবেন না, জো। এই হারে আর কোথাও এটা পাওয়া যাবে না। সমস্যাটার দিকে নজর দিন।
নি, ক্র্যা ও প্লি [একসঙ্গে] হ্যাঁ হ্যাঁ: সমস্যাটা! হ্যাঁ হ্যাঁ: এগিয়ে আসুন! সমস্যাটা: দূর করুন ওটাকে!
ব্যাল: চরমপত্র। চরমপত্রটা আনুন।
ম্যাগ: ও, তাহলে একখানা চরমপত্রও আছে! গতকালের সান্ধ্য-পত্রিকা দেখেই বুঝতে পেরেছিলাম যে সমস্যা একটা আছে– আরো একটা সমস্যা। কিন্তু চরমপত্র ব্যপারটা নতুন মনে হচ্ছে আমার কাছে [প্রোটিয়াসের প্রতি] আপনার কি একটা চরমপত্র আছে?
প্রোটিয়াস: মহামান্যের গতকালের বক্তৃতায় যে রাজকীয় ভোটের পরোক্ষ উল্লেখ আছে তা একটা বিষয়ের জন্ম দিয়েছে।
ম্যাগ: সম্ভবত অরুচিকর ছিল ওটা। কিন্তু পরোক্ষে আপনারা নিজেদের ক্ষমতাকে যেভাবে স্বাধীন বলে উল্লেখ করেন– পার্লামেন্টের সর্বময়তা এবং জনসাধারণের কণ্ঠের প্রতিধ্বনি এবং ইত্যাদি– তাতে আমার ভয় হয় যে আমার পূর্বের অবস্থানের কোনো কিছু হারিয়ে ফেলেছি আমি। আপনাদের বজ্রাঘাতের অস্ত্রগুলো যদি এভাবে হানতে থাকেন, তাহলে আমার সামান্য পপগানের ভেটো অস্ত্রটা এক মুহূর্তের জন্যও কি দোলাতে পারব না আমি?
নি: কৌতুক করার কোনো বিষয় এটা না, এটা–
ম্যাগ: [তাকে তাড়াতাড়ি থামিয়ে দিয়ে] কৌতুক করছি না আমি মি. নিকোবার। অবশ্যই চেষ্টা করছি কিছুটা হাস্যরসাত্মকভাবে আমাদের পার্থক্যগুলো আলোচনা করতে। আপনি কি চান এখনি অধৈর্য হয়ে পড়ি আমি, আর একটা দৃশ্যের অবতারনা করি।
এমান্ডা: আহা, তা নয় মহামান্য, দয়া করে তা নয়। জো’র কাছে থেকে যথেষ্ট পেয়েছি এটা আমরা।
প্রো: আমি প্রতি-
ম্যাগ: [প্রধানমন্ত্রীর বাহুতে হাত রেখে প্ররোচিত করে] শান্ত হ’ন: প্রধানমন্ত্রী: শান্ত হ’ন: আপনার ধূর্ত পোস্টমাস্টার জেনারেল মহোদয়াকে শুধু শুধু আপনার বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেয়ার জন্য উত্তেজিত করে তুলবেন না।
(সবাই হেসে উঠবে)
প্রো: [শান্তভাবে] সাবধান করে দেয়ার জন্য মহামান্যকে ধন্যবাদ। পোস্টমাস্টার জেনারেল মহোদয়া কখনোই ক্ষমা করতে পারেন নি আমাকে, তাঁকে রাজ্যের ফার্স্ট লেইডি না বানানোর অপরাধে। তাঁর তিন তিনটে ভাগ্নে আছে নেভিতে।
এমান্ডা: ওহো আপনি– [উপাধিটা গলধকরণ করলেন, প্রধানমন্ত্রীর প্রতি শুধু কাঁধ ঝাঁকিয়ে নিজেকে সন্তুষ্ট রাখলেন।]
ম্যাগ: [জিহ্বায় টাক্-টাক্-টাক্ শব্দ তুলে] শান্তভাবে, এমান্ডা, শান্তভাবে। তিনজন গুরুগম্ভীর ও অঙ্গীকারপূর্ণ বালক: ওরা সব সময় পক্ষ দেয় আপনাকে।
এমান্ডা: কখনোই চাই নি আমি যে ওরা সমুদ্রে যাক। বরং পোস্ট অফিসে ভালো চাকরির ব্যবস্থা করে দিতে পারতাম ওদের।
ম্যাগ: এমান্ডার পারিবারিক সদস্যদের বাদ দিয়ে একতাবদ্ধ একটা ক্যাবিনেটের মুখোমুখি হতে পারি কি আমি?
প্লি: না, স্যার। একটা কলহরত ক্যাবিনেটের মুখোমুখি হয়েছেন আপনি, কিন্তু শাসনতান্ত্রিক প্রশ্নটি নিয়ে: যেখানে বলে: একতাই শক্তি–Ñ বিচ্ছেদে পতন।
ব্যাল: এটা তাই।
নিকো: শুনুন শুনুন।
ম্যাগ: শাসনতান্ত্রিক প্রশ্নটা কি? রাজকীয় ভেটোকে অস্বীকার করেন কি আপনি? অথবা কেবল প্রতিবাদ করেন আমার অস্তিত্বের বিষয়গুলোকে মনে করিয়ে দেয়ার বিষয়টাকে?
নি: যা বলতে চাই আমরা, তা হল, প্রধানমন্ত্রীর উপদেশ ছাড়া, এবং লিখিতভাবে– তিনি না পড়ে এবং অনুমোদন করে না দিলে শাসনতান্ত্রিক বিষয়গুলোকে মনে করিয়ে দেয়ার কোনো অধিকার রাজার নেই।
ম্যাগ: কোন প্রধানমন্ত্রী? এমন অনেকেই তো আছেন ক্যাবিনেটে।
বোনা: ওখানে আছেন! আপনাদের জন্য ঠিক কাজটাই করে দিচ্ছেন! নিজেদের জন্য লজ্জা হয় না আপনাদের? আশ্চর্য হচ্ছি না আমি, যোশেফ প্রোটিয়াস। নিজেকে জানি আমি একজন প্রধানমন্ত্রীর মত, যে জানে কীভাবে প্রধানমন্ত্রী হতে হয়। আপনার মুখ দিয়ে সব সময় ওদের কথাই বলিয়ে নিতে দেন কেন?
প্রো: মহামান্য রাজা ক্যাবিনেটে যদি গোটা-কয়েক বোবা কুকুর প্রত্যাশা করেন তাহলে আমার দল থেকে তা পাবেন না তিনি।
ব্যাল: শুনুন শুনুন, জো!
ম্যাগ: স্বর্গ আমাদের ক্ষমা করুন! ক্যাবিনেটে ভিন্নমতের সমাবেশ সব সময়ই গঠনমূলক ও আনন্দদায়ক। আজকের বক্তা কে হবেন এটার?
প্রো: আমার সম্পর্কে আপনাদের মহামান্যের মতামত জানি আমি; কিন্তু আমরা–
ম্যাগ: [তিনি শুরু করার আগেই] খোলামেলাভাবে বর্ণনা করতে দিন আমাকে। আপনার সম্পর্কে আমার মতামত আপনার চেয়ে ভালো অন্য কেউ জানে না। কখন কথা বলতে হয় আপনার এবং কখন অন্যদের বলতে হয় আপনার জন্য; নাটকীয় দৃশ্যের অবতারণা করতে হয় কখন, এবং পদত্যাগ করার হুমকি দিতে হয়; এবং কখন একটা শসার মত শীতল হয়ে যেতে হয়, সবই বোঝেন আপনি।
প্রো: [পুরোপুরি অসন্তুষ্ট না হয়ে] ঠিক আছে, স্যার, আমি আশা করি যে এত বোকা না আমি, যেমন কিছু বোকারা মনে করে। সব সময় হয়তো ধৈর্য ধরে রাখতে পারি না আমি। আমার মনে হয়, আশ্চর্য হতেন না যদি জানতে পারতেন যে কতটুকু ধৈর্য ধরে রাখতে হয় আমাকে [সোজা হয়ে, ও চিত্তাকর্ষকভাবে বাকপটু হয়ে ওঠে] এই মুহূর্তে, ব্যক্তিগত ধৈর্য দেখানোর কোনো ইচ্ছে আমার নেই। আমার ক্যাবিনেটের ধৈর্য বা উত্তেজনা দেখে যেতে হবে আপনাকে। বিদেশ সচিব, অর্থ-সংক্রান্ত আচার্য এবং স্বরাষ্ট্র সচিব যা বলেছেন তা সত্য। সরকার যদি চালিয়ে নিতে হয় আমাদের, আপনার সকল বক্তৃতায় আমাদের মতামতের পরিবর্তে আপনার নিজস্ব মতামত প্রচার করতে দিতে পারি না, এ রকম কোনো কিছু প্রকাশ করতে দিতে পারি না যে আমাদের আইনসভায় যা কিছু মূল্যবান তার সবই আপনার গড়া, আমাদের নয়। জনসাধারণের কাছে এটা বলতে দিতে পারি না যে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোতে রাজনৈতিক অনধিকার প্রবেশের বিরুদ্ধে ওদের একমাত্র রক্ষাবূহ্য হল আপনার ভেটো শক্তি। কেবল হৈ-হুল্লোর ও ঝগড়াঝাটি করে চলেছি আমরা। আপনাকে বন্ধ করতেই হবে এটা, এবং চিরদিনের জন্য।
ব্যাল ও নিক: [একসঙ্গে] শুনুন, শুনুন!
প্রো: ব্যপারটা কি পরিষ্কার হয়েছে?
ম্যাগ: যতটুকু না সাহস করেছিলাম তার চেয়েও বেশি পরিষ্কার, মি. প্রোটিয়াস। প্রসঙ্গক্রমে শুধু বলি, একটা বিষয় বোঝা গেল না। যখন আপনি বললেন যে এসব কিছু, যা আপনি অভিযোগ করলেন, তা চিরদিনের জন্য বন্ধ করতে হবে, তা এ ব্যপারে আপনি কি বোঝাতে চাচ্ছেন? এখন থেকে আমাকে সম্মত হতে হবে আপনার সাথে, না আপনি সম্মত হবেন আমার সঙ্গে?
প্রো: এটা বোঝাতে চেয়েছি যে যখন আমাদের সঙ্গে অসম্মত হবেন আপনি তখন ঐ অসম্মতি রাখতে হবে আপনারই কাছে।
ম্যাগ: একটা বিশাল দায়িত্ব হবে ওটা আমার জন্য। যদি কখনো দেখি এই মহান জাতিটাকে আপনারা একটা খাড়া পাহাড়ের খাদের দিকে নিয়ে যাচ্ছেন, তাহলে কি সতর্ক করব না এ বিষয়ে, কোনোভাবে?
ব্যাল: সতর্ক করার বিষয়টা আমাদের, আপনার নয়।
ম্যাগ: ধরুন, কাজটা করছেন না আপনারা! ধরুন, বিপদটাকে দেখতে পারলেন না। এ রকম ঘটেছে। আবারও ঘটতে পারে।
ক্র্যা: [পরোক্ষে ইঙ্গিত করে] গণতন্ত্রে বিশ্বাসীদের মত আমি মনে করি, এমন কিছু ধরে নিতে বাধ্য হতে পারি যে এ রকম কিছু ঘটতে পারে না।
বোনা: পচা কথা! সব সময়ই এ রকম ঘটে চলেছে, যতক্ষণ পর্যন্ত না কারো বিচক্ষণতা এসে থামায় ওটা।
ক্র্যা: হ্যাঁ, জানি আমি। কিন্তু ওটা গণতন্ত্র নয়।
বোনা: গণতন্ত্র হ- [শব্দটা অনুচ্চারিত রেখে দেয়] গণতন্ত্রে তিরিশ বছরের অভিজ্ঞতা রয়েছে আমার। আমাদের প্রায় সবারই তাই। আর কিছু বরং না বলি আমি।
ব্যাল: মজুরি হচ্ছে খুব বেশি, যদি আমাকে কিছু জিজ্ঞেস করেন আপনি। যে কেউ সপ্তাহে পাঁচ থেকে বিশ পাউন্ড রোজগার করতে পারে এখন, চাকরি না থাকলে বড় অনুদান আছে, একজন ইংরেজ কেন রাজনীতি নিয়ে মাথা ঘামাবে, যতক্ষণ একটা মোটরগাড়ি চালানোর ক্ষমতা আছে ওর?
নিকো: কত ভাগ ভোটার অংশ গ্রহণ করেছে গত নির্বাচনে? তালিকাভুক্ত সাত ভাগও না।
ব্যাল: হ্যাঁ, ঐ সাত পার্সেন্টই হচ্ছে গাড়ি চড়ে বেড়ানো বোকাদের একটা অংশ। ক্র্যাসাসের মত করে গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করার জন্য আমাদের প্রয়োজন দারিদ্রতা ও ক্লেশ।
প্রো: [জোরালোভাবে] ক্লেশ ও দারিদ্র উচ্ছেদ করেছি আমরা। এবং এ কারণেই জনগণ আমাদের উপর আস্থা রাখে [রাজার প্রতি] এবং এ কারণেই আমাদেরকে রাস্তা করে দিতে হবে আপনার। আমাদের ইংল্যান্ডের জনগন যথেষ্ট আরামে আছে এখন– খাঁটি মধ্যম শ্রেণির আরাম– আমাদের পেছনে আছে ওরা।
ম্যাগ: না: ক্লেশ ও দারিদ্র আমরা উচ্ছেদ করি নি, ওটা করেছে আমাদের বড় ব্যবসায়ীরা। কিন্তু কেমন করে? আমাদের পুঁজিকে ঐ সব দেশে পাঠিয়ে যেখানে এখনো ক্লেশ ও দারিদ্র আছে: অন্যভাবে বলা যায়, যেখানে শ্রম খুব সস্তা। আমরা আরামে আছি ঐ পুঁজির লভ্যাংশ আমদানী করে, আমরা সবাই এখন ভদ্রমহিলা ও ভদ্রমহোদয়।
নিকো: ঠিক আছে, তাহলে এর বেশি আর কি চান আপনি?
প্লিনি: আমাদের এই আশ্চর্য সৌভাগ্য নিশ্চয় অনিচ্ছায় দান করেন নি, স্যার?
ম্যাগ: আমি চাই এটা টিকে থাকুক।
নিকো: টিকে থাকা কেন উচিত নয় এটা? [উঠে দাঁড়িয়ে] সত্যটাকে জানুন, মহাশয়। আপনি বরং ইচ্ছে করেন যে জনসাধারন দরিদ্র থাকুক আর ওদের মধ্যে সর্বেসর্বা হয়ে থাকেন আপনি, বহাল থাকেন ওদের রক্ষাকারী হিসেবে। আমাদের সরকার, মানে হুল্লোড়ে আর ঝগড়াটে বলে ডাকেন যাকে আপনি, তাদের অধীনে জনগন একটু সুখে থাকুক, আপনার ইচ্ছের বিরোধী এটা।
ম্যাগ: না: এটা হচ্ছে প্রধানমন্ত্রী মহোদয়ের অভিমত।
নিকো: বিবাদ ডেকে আনবেন না দয়া করে: আপনার নিচাশয় সংবাদ সংস্থা হতে ওগুলোর উদ্ধৃতি দিয়েছিলেন তিনি। যা বলতে চাই আমি, আরো বেশি মজুরি দেয়ার পক্ষে আমাদের অবস্থান, এবং সব সময় এটাকে অবজ্ঞা করে এসেছেন আপনি, সবাইকে বাধা দিয়েছেন এটা না দেয়ার জন্য। ঠিক আছে, নিশ্চয় জানেন যে ভোটাররা বেশি মজুরি পছন্দ করে। ওরা জানে, কখন ভালো থাকে ওরা; কিন্তু এটা জানে না যে কেন অসন্তুষ্ট হচ্ছেন আপনি; শুধু এ কারণেই ব্যর্থ হবেন আপনি, আমাদের বিপক্ষে ওদের খেপিয়ে তুলতে যত চেষ্টাই করুন না কেন, কাজ হবে না [বসে পড়বেন।]
প্লিনি: এভাবে গুতোগুতি করার প্রয়োজন নেই এটা নিয়ে, নিক। সবাই ভালো বন্ধু আমরা। সম্বৃদ্ধির বিরোধিতা করে না কেউ।
ম্যাগ: এই সম্বৃদ্ধি কি নিরাপদ মনে করেন আপনারা?
নিকো: নিরাপদ।
প্লিনি: ওহ্ বলুন, স্যার! খাসা বলেছেন!
ব্যাল: নিরাপদ! আমার নির্বাচনী এলাকায় দেখুন– উত্তর-পূর্ব বার্মিংহ্যাম, এর চার বর্গমাইল জুড়ে কনফেক্সনারি ও বিভিন্ন শিল্প-কারখানা। এটা কি জানেন যে ক্রিসমাস ক্র্যাকার ব্যবসায় বার্মিংহ্যাম হচ্ছে পুরো পৃথিবীর কর্মশালা?
ক্র্যা: ধরুন একবার গেইটসহেড ও মিডলব্র্যাককেÑ গত পাঁচ বছরে এক দিনের জন্যও বেকারত্ব আসে নি ওখানে, ওদের শুধু চকোলেট ক্রীম উৎপাদনের পরিমান হিসেব করলে দাঁড়ায় বিশ হাজার টন!
ম্যাগ: নিঃসন্দেহে আত্মতুষ্টিমূলক ভাবনা একটা, জাতিপুঞ্জ যদি শান্তিপূর্ণভাবে অবরোধ করে আমাদের তাহলে শুধু ক্রীম খেয়েই একটা হপ্তা কাটিয়ে দিতে পারব।
নিকো: মিষ্টির প্রতি দাঁত ভেংচানোর প্রয়োজন নেই আপনার: প্রচুর খাঁটি উপাদান আছে আমাদের, সে-সব দিকে ফিরে তাকাতে পারি। ইংলিশ গল্ফ ক্লাবের জুড়ি কোথায় আছে, বলুন দেখি?
ব্যাল: মৃৎপাত্রগুলো দেখুন আমাদের: দেখুন ঘোরদৌড়! আবিষ্কৃত নতুন নতুন যন্ত্র! দেয়ালপর্দাগুলোই দেখুন না কেন! বাজার থেকে ফরাসী সবকিছু ঝেঁটিয়ে বিদেয় করে নি কি আমাদের ঐ গ্রীনউইচের দৈত্য?
ক্র্যা: আমাদের উচ্চগতির মোটরগাড়ি আর স্টীমারগুলোর কথা কি ভুলে যাবেন স্যার! পৃথিবীর মধ্যে সুন্দরতম, এখনো এদের ডিজাইন প্রতিটা পৃথক, এক কথায় অনন্য! সস্তা কোনো কিছুই তৈরি করা হয় না এখানে।
প্লি: আমাদের পশুসম্পদ! ইংলিশ পোলো অথবা পনি ঘোড়াকে হারাতে পারবেন আপনি?
এমান্ডা: অথবা ইংলিশ পার্লার-পরিচারিকাদের? আন্তর্জাতিক প্রতিটা সুন্দরী প্রতিযোগিতায় জয়ী হচ্ছে এরা।
প্লি: এমন সময়ে ম্যান্ডি, ও ম্যান্ডি! এসব নগণ্য ব্যাপার নয়।
ম্যাগ: আমি নিশ্চিত নই যে শুধু ব্রিটিশ পার্লার-পরিচাকারাই আপনাদের ব্যালান্সশীটে একমাত্র স্থায়ী সম্পত্তি নয়।
এমান্ডা: [উল্লসিত হয়ে] আহা! [প্লিনির প্রতি] ঘরে ফিরে বিছানায় যান আপনি, বুড়ো মানুষ, ওটা নিয়ে ভাবুন শুধু।
প্রো: ঠিক আছে, স্যার? বুঝতে পেরেছেন কি যে আমাদের পক্ষে বিপুল অর্থ-উপার্জনকারী পৃথিবীর সব চেয়ে ভালো একটা প্রোলেতারিয়েত শ্রেণী রয়েছে।
ম্যাগ: [গম্ভীরভাবে] বিপ্লবকে ভয় করি আমি।
(মহিলা দু’জন ছাড়া সবাই হেসে উঠবে উচ্চস্বরে)
বোনা: আমাকে অবশ্যই ওদের দলে যোগ দিতে হবে, স্যার। আপনি যে রকম চকোলেট ক্রীমের বিপক্ষে, আমিও ঠিক তাই: ওরা কখনো একমত হতে পারে না আমার সঙ্গে। কিন্তু একটা বিপ্লব, ইংল্যান্ডে!!! মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন ওটা, স্যার। যদি না ট্রাফালগার স্কোয়ারে যেয়ে ম্যাগনাকার্টা ছিঁড়ে ফেলতে হয় আপনাকে, এবং স্মিথফিল্ডের আগুন জ্বালাতে হয় হাউস অব কমন্সের প্রতিটা সদস্যের ঘুরে বেড়ানোর জন্য।
ম্যাগ: ইংল্যান্ডে একটা বিপ্লবের বিষয় নিয়ে ভাবছিলাম না আমি, ভাবছিলাম ঐ সব দেশের কথা যাদের প্রদত্ত রাজস্বে বেঁচে আছি আমরা। ধরুন, এটা বন্ধ করার জন্য ওদের মধ্যে এই বিপ্লবটা ঘটলো? আগেও ঘটেছে এটা।
প্লি: আহ্, তা না স্যার! না, না, না, আমাদের সঙ্গে ওদের বৈদেশিক বাণিজ্য আর কি হতে পারত?
ম্যাগ: প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা দিয়ে আমি মনে করি, ক্রিসমাস ক্রেকার ছাড়াও চলতে পারত ওরা।
ক্র্যা: আহ্, এটা হচ্ছে ছেলেমানুষি।
ম্যাগ: ছেলেমানুষেরা ওদের স্বাভাবিক সরলতার সময় অতিমাত্রায় প্র্যাকটিক্যাল, জনাব উপ-সচিব। যতই আমি লক্ষ্য করি যে কোনো রকম সাফল্য আসে আমাদের অত্যাবশ্যক শিল্পগুলো বড় ব্যবসায়ীদের হাতে ছেড়ে দিয়ে, যতক্ষণ পর্যন্ত আপনাদের নির্বাচনী এলাকাগুলোকে বেশি মজুরি দিয়ে শান্ত রাখে ওরা, ততই আমার মনে হতে থাকে যে একটা আগ্নেয়গিরির উপর বসে আছি আমি।
লী: [সন্তুষ্টি-অসন্তুষ্টি নিয়ে আলোচনা শুনছিল যে, সমাধির নিস্তব্ধতা হঠাৎ ভঙ্গ করার মত বলে ওঠে] শুনুন শুনুন! আমার দপ্তর স্কটল্যান্ডের উত্তর স্রোত থেকে এনার্জি সরবরাহ নিশ্চিত রাখতে পুরোপুরি সমর্থ ও প্রস্তুত ছিল। আপনাদের মত বুদ্ধিমানেরা এটা দিয়ে দিয়েছেন পোর্টল্যান্ড ফার্ম সিন্ডিক্যাটের কাছে। এই বিদেশী পুঁজিপতির দলটা আমাদের জনগনের খরচে কোটি কোটি পাউন্ড হাতিয়ে নেবে, কোন্দল আর খেমটামিতে লেগে আছি আমরা এখন। ক্র্যাসাস এটা করেছিলেন কারণ ওর চাচা এটার চেয়ারম্যান।
ক্র্যা: মিথ্যা কথা। জলজ্যান্ত মিথ্যা কথা। আমার সঙ্গে সম্পর্কিত ন’ন তিনি। আমার সৎ ছেলের শ্বশুর ঐ ভদ্রলোক।
ব্যাল: ‘খেমটা ও কোন্দল’ বাক্যাংশটার ব্যাখ্যা দাবি করছি আমি। এটার যথাযথ প্রয়োগ লক্ষ্য করলাম আজ। কাদের বলছেন এটা আপনারা? ফ্যাক্টরি বিল নিয়ে নিশ্চয় কোন্দল করি নি আমি। অফিসে যেয়ে আমার ডেস্কে দেখতে পাই এটা, মহামান্যের মন্তব্যগুলোও মার্জিনে উল্লেখ করা ছিল, সবাই জানেন এ বিষয়ে।
প্রো: আপনারা সবাই কি সরাসরি মহামান্যের সঙ্গে এই খেলা চালিয়ে যাবেন আর আমার পরিস্থিতিটা একেবারে অসম্ভব করে তুলবেন?
(দোষনীয় নীরবতা)
প্রো: [বিচক্ষণতা ও কর্তৃপক্ষীয়ভাবে] আমাদের সামনে এখন প্রশ্ন কোনো একজনের আচরণ বা সামর্থ্য নয়। ঐ প্রশ্নটার জন্য মহামান্য নিশ্চয় চাপ দেবেন না, তাহলে তাঁর নৈতিকতার প্রশ্নটা তোলার জন্য আমাদেরকেও বাধ্য করবেন তিনি।
ম্যাগ: [শুরু করবেন] কি!
ব্যাল: ভালো, জো!
ক্র্যা: [একান্তে এমান্ডাকে] ওটা পেয়েছে ওকে।
ম্যাগ: হুমকিটা কি সত্যিই গ্রহণ করতে হবে আমাকে, মি. প্রোটিয়াস?
প্রো: ব্যক্তিগত কলঙ্কের অভ্রান্ত ও আভ্যন্তরীন বিষয় নিয়ে যদি পক্ষপাতিত্ব করার চেষ্টা করেন, তাহলে আপনার পেছনে কাদার ছাপ দেয়া আমাদের জন্য বরং সহজই হবে, মহামান্য। এই বিবাদে আমরা হচ্ছি আহ্বায়ক প্রতিপক্ষ। কি অস্ত্র ধারণ করবেন আপনি তা আপনার বিবেচ্য। যদি কলঙ্ক অস্ত্র বেছে নেন তাহলে ওখানেই নিয়ে যাব আপনাকে। তবে, ব্যক্তিগতভাবে দুঃখ প্রকাশ করব আমি যদি ওখানে যান আপনি। জনসমক্ষে আপনার নোংরা পোশাক ঝাড়াঝাড়ি করা বুদ্ধিমানের কাজ হবে না। যা ঘটবে তার বিষয়ে ভুল কিছু আনবেন না আশা করি। আপনার সঙ্গে সরল থাকার চেষ্টা করব আমি: র এর ফোটা আর ষ এর পেট অবশ্যই কেটে দেব আমি। আপনি হয়তো বলবেন যে ক্র্যাসাস একজন ঠিকা-কাজের লোক।
ক্র্যা: [¯স্প্রিঙের মত লাফিয়ে উঠে] আমি–
প্রো: [সবলে তাকে বসিয়ে দিয়ে] বসে থাকুন। আমার কাছে ছাড়ুন বিষয়টা।
ক্র্যা: [বসে যেয়ে] আমি একটা ঠিকা লোক! ঠিক আছে!
প্রো: [চালিয়ে যেয়ে] আপনি বলবেন যে একটা ষাঁড়ের মত ঐ ব্যালবাসকে অফিস দেয়া আমার উচিত হয় নি–
ব্যাল: [ক্র্যাসাসের অবস্থা বুঝেও প্রতিবাদ করা থেকে নিজেকে নিরত রাখতে না পেরে] এদিকে দেখুন, জো–
প্রো: চুপ কর তুমি, বদমাস। এটা সত্য।
ব্যাল: [একটা কাঁধ ঝাঁকুনি দিয়ে ঝিমিয়ে যাবে!]
প্রো: ঠিক আছে, কি ঘটবে? কোনো অস্বীকৃতি থাকবে না, ক্ষমা থাকবে না, সমর্থন থাকবে না। ঐ ফাঁদে পা দেব না আমরা, যত চাতুর্যের সঙ্গেই না কেন ওটা পেতে রাখুন আপনি। ক্র্যাসাস শুধু বলবে যে আপনি একজন মুক্তচিন্তাশীল ব্যক্তি। এবং ব্যালবাস বলবে যে আপনি একজন স্বাধীনচেতা।
পুরুষ ক্যাবিনেট সদস্যগন: [তাদের নিঃশ্বাসের ধ্বনির সঙ্গে] আ…হ্…!!!
প্রো: এখন, রাজা ম্যাগনাস! আমাদের তাসগুলো টেবিলে আছে। কি বলবেন আপনি?
ম্যাগ: চমৎকারভাবে রাখুন! আপনার চারদিকে এত কঠিন সব চরিত্রেরা থাকতে জনগনের জিজ্ঞাসা কি করে টিকিয়ে রাখা যায়! মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মূর্ছা-ব্যামো, গোপনীয়তা ও নান্দনিক অলসতা– এসব সত্বেও–
ব্যাল: [উৎফুল্ল হয়ে] শুনুন শুনুন! এবার টের পাচ্ছেন, জো।
ম্যাগ: [চালিয়ে যেয়ে] কিন্তু যখন কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণের মুহূর্ত আসে, তখন ওরা বোঝে যে আপনি কেমন আজব এক চিড়িয়া।
প্রো: আজব কোনো মানুষ নই আমি। এমন কোনো পুরুষ সদস্য এখানে নেই, অথবা মহিলা নেই– যাদের কাজ ঠিক-ঠিকভাবে করতে পারে ওরা, যেমনটা আমি করি। একই কারণে আমি প্রধানমন্ত্রী, যে-সকল কারণে অন্যেরাও প্রধানমন্ত্রী ছিলেন: কারণ নাই-কাজের জন্য খুব ভালো আমি। ঠিক বিন্দুটাতে অবস্থান করতে পারি আমি– যখন এটা মানিয়ে যায় আমাকে। আপনাকেও ঠিক বিন্দুতে অবস্থান করাতে পারি আমি, স্যার, এটা মানাক বা না মানাক আমাকে।
ম্যাগ: প্রতিটা ক্ষেত্রেই রাজাকে তোষামোদ করতে পারেন না আপনি। তাদের মধ্যে একজন, অন্তত, এটার জন্য আপনার কাছে কৃতজ্ঞ।
প্রো: রাজারা, যেমন আপনিও জানেন ভালোভাবে, এবং জানি আমিও, তাদের মন্ত্রীদের শাসন করে তোষামোদের মাধ্যমে, এবং বর্তমানে, সভ্য অর্ধ-ইউরোপে আপনিই একমাত্র রাজা যার মধ্যে প্রকৃতি তার তোষামোদের সকল গুণাবলী, যেগুলোকে আধ-ডজন রাজা, তিনজন সম্রাট, ও একজন সুলতানের মধ্যে ভাগ করে দিতে পারতেন, তার একক সমাবেশ ঘটিয়েছে।
ম্যাগ: কিন্তু ঐ বিষয়টাকে তোষামোদ করার আগ্রহ কি কোনো রাজার থাকতে পারে?
প্রো: ধরুন, তিনি একজন সুন্দরী মহিলা, স্যার?
নিকো: ধরুন তার অনেক টাকা আছে, এবং রাজার কঠিন অবস্থা!
প্রো: ধরুন তিনি একজন প্রধানমন্ত্রী, যার উপদেশ ছাড়া কিছুই করতে পারেন না আপনি।
ম্যাগ: [দারুণ খুশিতে হাসি ফুটে উঠবে মুখে] আহ্, এখানেই মাথার মধ্যে পেরেকটা ঠুকে দিলেন আপনি। ঠিক আছে, ধরে নিলাম যে আত্মসমর্পন করতে হচ্ছে আমাকে। আমি পরাজিত। আপনারা সবাই আমার চেয়ে অনেক বেশি চতুর।
বোনা: ঠিক আছে, এর চেয়ে সুন্দর আর কিছুই হতে পারে না।
প্লি: [হাত ঘষতে ঘষতে] আপনি একজন ভদ্রলোক, স্যার। এটা খুব বেশি ঘষাঘষি করি না আমরা, জানেন তো স্যার।
ব্যাল: বন্ধুদের মধ্যে সর্বোত্তম। একজন মানুষ মরে গেলে ওকে আঘাত করা আমার ধাতে নেই।
ক্র্যা: একজন ঠিকা-কাজের লোক আমি, হতে পারে; কিন্তু কেউ বলবে না যে অনুদার প্রতিপক্ষ আমি।
বোনা: [হঠাৎ আবেগে উচ্ছ্বসিত হয়ে, দাঁড়িয়ে জোর গলায় গাইতে শুরু করবে] ভুলে যেও বন্ধু দরবারের এই পরিচয়, কখনো এনো না মনে–
[বাধভাঙ্গা হাসিতে লুটিয়ে পড়বে এমান্ডা। ভর্ৎসনার দৃষ্টিতে রাজা তাকাবেন ওর দিকে, স্থৈর্যভাব বজায় রাখবেন অতিকষ্টে। কোরাসে যোগ দেবে অন্যেরা ‘কখনো এনো না মনে–’ ক্রুদ্ধভাবে উঠে দাঁড়াবে প্রোটিয়াস]
প্রো: সবাই কি মাতাল হয়ে গেছেন, আপনারা?
[মৃতের নীরবতা। তড়িৎ গতিতে বসে যাবে বোনা, অন্য গায়করা ভান করবে যেন অনুমোদন করা হয়েছে এটা]
প্রো: রাজার সঙ্গে একটা হেঁচকা-হেঁচকি যুদ্ধে লিপ্ত আমরা এখন, জীবন নিয়ে টানাটানি আপনাদের, ভাবছেন জিতে গেছেন! জিতেন নি জনাবেরা। যা ঘটেছে, তা হল দড়িটায় একটু ঢিল দিয়েছেন রাজা সাহেব। আর এলিয়ে শুয়ে পড়েছেন আপনারা, আপনাদের দিকে তাকিয়ে এখন হাসছেন তিনি। দেখুন তাঁর দিকে! [কথা শেষ করে অবজ্ঞার সঙ্গে বসে পড়বেন]
ম্যাগ: [উল্লাস গোপন করার কোনো চেষ্টা না করে] আমাকে উদ্ধার করতে এগিয়ে আস এমান্ডা। তুমিই দমিয়ে দিয়েছিলে আমাকে।
এমান্ডা: [হাসিতে উদ্ভাসিত হয়ে] এত সুন্দরভাবে গ্রহণ করেছিলেন আপনি আমাকে, স্যার। [বোনার প্রতি] বিল: আপনি একজন বড় রকমের বোকা।
বোনা: আমি! বুঝতে পারলাম না এটা। আমাদেরকে মহামান্যের রাস্তা করে দেয়ার বিষয়টা বুঝতে পেরেছিলাম, অবশ্যই বলা উচিত আমার, সুন্দর একটা পদ্ধতি মেনে করা হয়েছিল এটা। এই বিজয়টাকে ভদ্রলোকের মত গ্রহণ করতে পারি না আমরা?
ম্যাগ: সম্ভবত আরেকটু ভালোভাবে ব্যাখ্যা করেছিলাম ওটা। সরল এবং একই সঙ্গে জমকালো চেতনার অনুপ্রেরণা অবশ্যই দিয়ে থাকি আমি– বরং বলতে পারি ইংরেজ চেতনা– যার মধ্যে সামান্য অনুমোদন গ্রহণ করা হয়েছে আমার, বিশেষ করে আপনার দ্বারা, মি. বোনার্জেস। সত্যি বলতে কি, বিষয়গুলো যেখানে ছিল ওখানেই ছেড়ে দেয় এটা। প্রত্যাভিযানের কোনো উদ্যোগ নেয়ার বিষয় স্বপ্নেও কখনো ভাবতাম না, যেমন উপদেশ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। যেমন তিনি মনে করিয়ে দিয়েছেন আমার ব্যক্তি-চরিত্র বিষয়ে, ঠিক আছে, কিন্তু ওটা অনেক বেশি অরক্ষিত তাঁর নিজেরটা থেকে। একজন রাজাকে সৎ-চরিত্রের বিলাসিতা করতে দেয়া হয় না। শত সহস্র অনিন্দ্য-চরিত্র সবজি-বিক্রেতার জন্ম দিয়েছে আমাদের দেশ, কিন্তু দুর্নাম ছাড়া একজনও রাজা জন্ম দেয় নি। অনুমান করতে পারি যতগুলো, তার চেয়েও অনেক বেশি ধর্মমত অনুসারী জনগোষ্ঠির শাসন করতে হয় আমাকে। পক্ষপাতহীনভাবে শাসন করতে হলে তাদের যে-কোনো এক বা একাধিক অংশের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়া অবশ্যই উচিত না আমার। অথচ ঐ লোকটাকেই পছন্দ করে ওরা, যে নাস্তিকের মত আচরণ করে না। আমার প্রাসাদে সত্যিই সম্মান পাওয়ার যোগ্য এমন কিছু স্ত্রী ও মাতা রয়েছেন যাদের আশ্চর্য অহঙ্কার সম্পর্কে বলা যেতে পারে যে এ রকম পরিত্যক্ত মহিলাদের এটা থাকে কেমন করে! রাজার উপ-পত্নি হওয়ার সম্মানটুকু পাওয়ার জন্য যে-কোনো কিছু করতে পারে ওরা, কেবল দুর্ভাগা রাজাকে ওদের দাবির স্বীকৃতিটুকু দেয়ার আনন্দ দেয়া ছাড়া। পাশাপাশি আরো কিছু মহিলা আছেন যারা সত্যিই নীতিজ্ঞানশূন্য। সুনামের প্রতি এতই সচেতন ওরা যে রুষ্টভাবে অস্বীকার করার কোনো সুযোগই হারায় না ওরা। কোনো আমন্ত্রণ এড়িয়ে গেছে, কখনো এটা মেনে নেবে না। এমনও হতে পারে, তা করা হয়ই নি ওদের কাছে কখনো। এভাবে, প্রায় প্রত্যেক রাজাকে ধরে নেয়া হয় একজন কামুক হিসেবে, এ রকম বিশ্বাসের উপর বিশ্রীভাবে তাঁর জনপ্রিয়তার একটা বড় অংশ মেনে নেন তিনি। গভীর নিরাশার সঙ্গেও তার বিষয়গুলোকে বাদ দিয়ে এটাকে অস্বীকার করতে পারেন না।
[ভয়ানক নীরবতা নেমে আসে, উৎসাহব্যঞ্জক সাড়া পাওয়ায় চারদিকে তাকাবেন আশান্বিত হয়ে]
লী: [নিজে নিজে] মহামান্যের ব্যক্তিগত বিষয়ে আমাদের কোনো আগ্রহ নেই, যে রকমই হোক ওটা।
এমান্ডা: [ঠোঁট চেপে, থুথু ছিটিয়ে হাসিতে ফেটে পড়ে]!!
ম্যাগ: [রুষ্ট হয়ে তাকাবেন এমান্ডার দিকে!]
এমান্ডা: [খুব চেষ্টা করে চেহারা স্বাভাবিক করবে, যত দূর সম্ভব] মাপ করবেন।
ক্র্যা: আশা করি মহামান্য এটাও বুঝতে পেরেছেন যে রাজাই একমাত্র ব্যক্তি ন’ন যার পেছনেই শুধু কাদা লাগানো যায়, কোন বুদ্ধু এটা করেছে তাতে কিছুই আসে যায় না। একজন মন্ত্রীকে ঠিকা-কাজের লোক বলা যেতে পারে–
ব্যাল: অথবা একজন খেমটা।
ক্র্যা: হ্যাঁ, একজন খেমটা, এবং এটা বিশ্বাসও করে সবাই। ঠিকা কাজ করা, আর অযোগ্যতা হচ্ছে দু’ধরনের কাদা যা আমাদের গায়ে লাগানো যায়। কতটুকু সৎ ও দক্ষ আমরা তাতে কিছুই আসে যায় না। এবং সেই রাজকীয় আনুকূল্য আমাদের নেই যা আপনি ভোগ করেন, যত বেশি মহিলা আপনার চরিত্র অপহরণ করবে সেই অনুপাতে তত বেশি জনসাধারণ পছন্দ করবে আপনাকে।
বোনা: [আকস্মিকভাবে] প্রধানমন্ত্রী: আমাকে বলবেন কি আপনি যে পোস্টমাস্টার জেনারেল মহোদয়া কেন এমন গুজুর-গুজুর করছেন?
এমান্ডা: এটা একটা স্বাধীন দেশ, বিল। রসিকতা ব্যপারটায় কোনো অপরাধ নেই। তাছাড়া রাজা যখন থামতে বলে নি আমাকে তখন আপনি এমন করছেন কেন?
বোনা: কৌতুকটা কোথায়? আমি তো দেখতে পাচ্ছি না।
এমান্ডা: কৌতুকটা যদি দেখতে পারতেন বিল, তাহলে এ রকম সুবক্তা হতে পারতেন না।
বোনা: ঈশ্বরকে ধন্যবাদ, এখানে উপস্থিত আর কয়েকজনের মত বোকা ও মুখ-টিপে-হাসা লোক আমি নই।
এমান্ডা: ধন্যবাদ, প্রিয়তম বিল। এবার শুনুন, জো: আপনি কি মনে করেন না যে উল্টাপাল্টা ব্যপার নিয়ে যথেষ্ট ঘাটানো হয় নি আপনার? চরমপত্রের ব্যপারটার কি হল?
ম্যাগ: [এমান্ডার প্রতি মাথা ঝাঁকিয়ে] বিশ্বাসঘাতক!
প্রো: কোনো তাড়া নেই আমার। মহামান্যের বক্তৃতাগুলো অত্যন্ত জ্ঞানগর্ভ ও আনন্দদায়ক, আপনাদের পেছনের গালগল্প রাজা এবং আপনাদের উভয়কেই আনন্দ দেয়। কিন্তু চরমপত্র– ওটা ওখানেই আছে। এ জায়গা ছেড়ে কোথাও যাচ্ছি না আমি যতক্ষণ পর্যন্ত না মহামান্য এটার প্রতিটা শর্ত প্রতিপালনের অঙ্গীকার করে স্বাক্ষর করেছেন এটায়।
[গম্ভীরভাবে মনোযোগী হবে সবাই]
ম্যাগ: শর্তগুলো কি এটার?
প্রো: প্রথমত: রাজকীয় বক্তৃতা আর একটাও নয়।
ম্যাগ: কি! আপনার আদেশ অনুসারে যদি লিখে দেয়া হয়, তাও না?
প্রো: আমাদের আদেশ অনুসারে যদি লিখে দেয়া হয়– তাও না। বক্তৃতার কাগজটার ভাঁজ খোলার একটা পদ্ধতি আছে আপনার এবং দেখেও না দেখার ভান–
ম্যাগ: দেখেও না দেখা!
প্রো: আপনি নিশ্চয় জানেন কি বোঝাতে চাইছি। পৃথিবীর সব চেয়ে ভালো বক্তৃতাটাও এমনভাবে পড়া যায় যে শ্রোতারা তা শুনে হাসবে। অনেক হয়েছে এটা। অতএব, ভবিষ্যতে আর বক্তৃতা না।
ম্যাগ: একজন বোবা রাজা?
প্রো: এ ধরনের বক্তৃতায় অবশ্যই বাধা দিতে পারি না আমরা, যেমন ‘‘আমরা ঘোষণা করলাম যে এই ভিত্তি প্রস্তরটা সুন্দর এবং সত্যিকারভাবে স্থাপন করা হল।’’ এবং এ রকম আরো। কিন্তু রাজনৈতিক? না: একজন বোবা রাজা।
প্লি: [এটাকে হালকা করার জন্য] একজন নিয়মতান্ত্রিক রাজা।
প্রো: একজন বোবা রাজা।
ম্যাগ: হুম! অতঃপর কি?
প্রো: প্রাসাদের পেছন-সিঁড়ি থেকে প্রেসের ব্যবস্থাটা বন্ধ করে দিতে হবে।
ম্যাগ: আপনি নিশ্চয় জানেন যে প্রেসের উপর কোনো এখতিয়ার নেই আমার। প্রেসগুলো আমার চেয়ে অনেক বেশি ধনবান মানুষদের হাতে, ওদের পছন্দের বাইরে একটা অনুচ্ছেদও নেবে না ওরা, এমনকি আমার স্বাক্ষর করা ও রাজকীয় আদেশ থাকলেও না।
প্রো: তা জানি আমরা। এরা আপনার চেয়ে ধনবান হলেও বুদ্ধিমান না। লেখার সুখকর বিষয় পায় ওরা, ঝাল-মশলা মেশানো, বিশেষ করে পেছনের সিঁড়ির সব খবরাখবর, রাজনীতি নিয়ে কিছু করার বিষয় খুঁজে দেখে না ওরা। এরপর যে বিষয়টা ওরা জানে যে ওদের আদুরে অংশীদারেরা পনেরোটা পয়েন্ট ছেড়েছে; আমাদের দলীয় কার্যক্রমের কিছু ভালো পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে নাগরিক কাজের মত করে দেখানোর জন্য।
ম্যাগ: এই বিষয়গুলো কি আমার লেখার কথা?
নিকো: আপনার নিজের মানুষ, সেমপ্রোনিয়াস লেখে, ওর হাতে প্রস্তুত রয়েছে এমন পঞ্চাশটা কলাম দেখাতে পারি আমি।
ক্র্যা: আমিও পারি। যখনই আমার সঙ্গে মিশে ও তখনই শুরু করে ‘‘এককভাবে অনেক’’
প্লি: [চো চো শব্দ করে] এটা হচ্ছে ওর ট্রেইডমার্ক। ‘‘এককভাবে অনেক’’ হা! হা!
ম্যাগ: অপরপক্ষের কোনো সীমা যদি বাধা থাকে? ধরা যাক, আমি লক্ষ্য করেছি, কোনো একটা সংবাদপত্রে সিংহাসনকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করার একটা সুযোগও সে ছাড়ে না, প্রধান বিষয়টার শেষ বাক্য শুরু হয় এই শব্দ কটা দিয়ে ‘‘একেবারে চিরদিনের জন্য’’, এটা কার ট্রেইডমার্ক?
প্রো: আমার।
ম্যাগ: সরল হোন, মি. প্রোটিয়াস।
প্রো: আমি জানি কখন সরল হতে হয়। মহামান্যের কাছ থেকেই এ কৌশলটা আয়ত্ব করেছি।
এমান্ডা: [না হাসার জন্য চেষ্টা করবে]
ম্যাগ: [ভদ্রভাবে রাগ দেখাবে] এমান্ডা: কোন কৌতুকটা হচ্ছে এখন? অবাক হচ্ছি তোমার প্রতি!
এমান্ডা: সরল হোন, জো! যখন আমি জানতে চাই যে তাঁর কি ঘটেছে তখন এগিয়ে আসতে হয় আমাকে এবং মহামান্যকে জিজ্ঞাসা করতে হয়।
লী: সর্বাংশে সত্য। নীতির উর্ধে কোনো কিছুই নেই এই ক্যাবিনেটে। সবাই তার নিজের জন্যই মাঠে নামে।
নিকো: তাসের মত একটা খেলা এটা।
ব্যাল: কেবল কোনো অংশীদার নেই এতে।
লী: ক্র্যাসাস এবং নিকোবার ছাড়া।
প্লি: খুব ভালো, লিজি! হি! হি! হি!
নিকো: কি বোঝাতে চান আপনি?
লী: ভালোভাবেই জানেন কি বোঝাতে চেয়েছি, যখন আপনি শিখবেন, নিকোবার, যে ভ্রুকুটি করে আমাকে ভয় দেখানোর চেষ্টা করার কোনো অর্থ হয় না। একজন স্কুল-শিক্ষক হিসাবে জীবন শুরু করেছিলাম আমি; এখন এই ক্যাবিনেটের যে কাউকে ভ্রুকুটি হানতে পারি আমি, অথবা এই দপ্তরে আমার সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চাওয়ার মত বোকা যদি কেউ থাকে যে কোনো সময় তাকে ছুঁড়ে ফেলতে পারি।
বোনা: অর্ডার! অর্ডার! এমন অশ্লীল ব্যক্তিত্বদেরকে প্রধানমন্ত্রী বাধা দিতে পারেন না কি?
প্রো: আমাকে ভাবতে সময় দেয় ওরা, বিল। আরো বেশি সংসদীয় অভিজ্ঞতা হবে যখন তোমার, যেমন আছে আমার, খুব খুশি হবে তুমি যখন দেখবে যে মাঝে মধ্যে বাধা পাচ্ছ। এবার শুরু করতে পারি আমি?
[নীরবতা]
প্রো: মাননীয় রাজা জিজ্ঞেস করেছেন যে প্রেসের অভিযানে বাধ্যবাধকতা পুরোপুরি এক-পক্ষীয় হবে কিনা? আমি মনে করি, স্যার, এটাই আপনার জিজ্ঞাসা?
ম্যাগ: [সম্মতিসূচক মাথা দোলানো]
প্রো: জবাব হচ্ছে, হ্যাঁ-বোধক।
ব্যাল: ভালো, বেশ ভালো!
ম্যাগ: আর কিছু?
প্রো: হ্যাঁ: আরো একটা বিষয়, ভেটোর বিষয়টা অবশ্যই উল্লেখ করা হবে না আর। ওটার প্রয়োগ উভয় পক্ষ থেকেই করা যেতে পারে, যদি পছন্দ করেন আপনি। ভেটো তাহলে মৃত বলে ঘোষিত।
ম্যাগ: শবের প্রতি একটা ঐতিহাসিক যোগসূত্র প্রতিষ্ঠা করতে পারব না আমরা?
প্রো: না। রাজার সরকার পরিচালনা করতে পারি না আমি যতক্ষণ পর্যন্ত না এটা অঙ্গীকার ও পরিপালন করাতে সক্ষম হই। এসব অঙ্গীকারের কি মূল্য আছে যদি আমার নির্বাচকদের প্রতিদিনই মনে করিয়ে দেয়া হয় যে সংসদ যাই করুক না কেন রাজা এতে ভেটো দিতে পারে। আপনি কি এটা গ্রহণ করবেন যখন আমাকে কোনো অঙ্গীকার করতে বলা হবে তখন যদি বলি ‘‘অবশ্যই রাজাকে জিজ্ঞেস করতে হবে আমার?’’
ম্যাগ: আমাকে অবশ্যই বলতে হবে ‘‘প্রধানমন্ত্রীকে অবশ্যই জিজ্ঞেস করতে হবে আমার।’’
প্লি: [তাঁকে শান্ত্বনা দিয়ে] এটাই হচ্ছে সংবিধান, নিশ্চয় জানেন আপনি।
ম্যাগ: একেবারে ঠিক। উল্লেখ করেছিলাম শুধু এটা বোঝানোর জন্য যে প্রধানমন্ত্রী সত্যি সত্যি ভেটোকে হত্যা করতে চান না, সরিয়ে পরের ধাপে রাখতে চান শুধু।
প্রো: পরের ধাপেই বাস করে জনসাধারণ, দেয়ালের লিখন হচ্ছে সাধারণের মতামত।
ম্যাগ: [গম্ভীরভাবে] চমৎকারভাবে ঘোরানো হয়েছে, ভালো প্রধানমন্ত্রী; কিন্তু অপ্রকৃত। সাধারণের মতামত বিষয়টার অনেক বেশি কাছাকাছি আমি আপনার চেয়ে। গনতন্ত্রের উপর সাধারণ মানুষের বিশ্বাসকে ধন্যবাদ, সব সময়ই ভান করতে পারেন যে, আপনি যা করেন তা জনগণের ইচ্ছায় করেন। ঈশ্বর জানেন, এটার স্বপ্নও দেখেন না আপনি। আর ঐ বিশ্বাসটা যদি ওদের থাকে তাহলে বোঝেও না যে একজন রাজা এটা করে কেন? তিনি, এবং একমাত্র তিনিই, সব কিছুর জন্য দায়ী থাকেন। এমনকি একটা ঘোড়াও চুরি করতে পারে একজন জননায়ক, কিন্তু একটা প্রাচীরের উপর দিয়ে তাকাতেও সাহস করে না একজন রাজা।
লী: সন্দেহ আছে এটায় কোনো সত্য আছে কিনা, স্যার। আমি জানি, আমার দপ্তরে যে-কোনো ভুল হলে আমিই দুর্নামগ্রস্থ হই।
ম্যাগ: আহ্! তুমি একজন স্বেচ্ছাচারী, লীসিসত্রাতা! যা হোক, তোমাকেই অনুমোদন করা গেল। জনসাধারণ অনেক আগেই বুঝতে পেরেছে যে গনতন্ত্র হচ্ছে একটা দমবাজী, একটা দায়িত্বশীল সরকার প্রতিষ্ঠাকরণের পরিবর্তে এটা একে উচ্ছেদ করেছে। তুমি কি দেখতে পাও, কি বোঝায় এটা?
বোনা: [লজ্জাকরভাবে] শান্ত হ’ন, শান্ত হ’ন! এখানে বসে শুনতে চাই না যে গণতন্ত্রকে দমবাজী বলছে কেউ। দুঃখিত স্যার, আপনার প্রতি যথাযথ সম্মান দেখিয়েও বলছি, সত্যিকারভাবেই ওটার প্রতি ইঙ্গিত করেছি আমি।
ম্যাগ: ঠিকই বলেছেন মি. বোনার্জেস, যেমন সব সময়ই বলে থাকেন আপনি। তুলনামূলকভাবে গণতন্ত্র হচ্ছে একটা নির্ভেজাল বস্তু, অন্যান্য অনেক পুরোনো পন্থার চেয়ে দমবাজী অনেক কম এখানে। কিন্তু এটার অর্থ এই না যে জনগন শাসন করে। দায়িত্ব ও ভেটো এখানে থাকে না, রাজার কাছে না, জননায়কদের কাছে থাকে, যারা সব চেয়ে বেশি চালাকি করতে পারে জনগনের সঙ্গে।
লী: যেমন আপনি, স্যার?
ম্যাগ: আমি মনে করি এখন আমার পর্ব চলছে। এ কারণেই এই চরমপত্রটা স্বীকার করে নিতে নিজেকে বাধ্য মনে করছি না। এটায় স্বাক্ষর করে নিজেকেই ক্ষমতাহীন করব, অতএব কেন এটা করা?

ব্যাল: কারণ আপনি হচ্ছেন রাজা, শুধু একারণেই।
ম্যাগ: এটা কি অনুসরণ করা হবে?
প্রো: যদি দু’জন মানুষ একটা ঘোড়ায় চড়ে তাহলে অবশ্যই পেছনে বসতে হয় একজনের।
লী: কোনটার?
প্রো: [তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে লীর দিকে ঘুরে] ওটা আবার কি বললেন আপনি?
লী: [ধীরে, কিন্তু ভয়ানক একগুয়ে ও কঠিনভাব মুখে ফুটিয়ে] আমি বলেছি কোনটার? আপনি বললেন যে যদি দু’জন মানুষ ঘোড়ায় চড়ে, তাহলে অবশ্যই একজনের পেছনে বসতে হয়। আমি বলেছি কোনটার? [ব্যাখ্যা করে] কোন মানুষটার অবশ্যই ঘোড়ার পেছনে চড়তে হয়। বুঝেছেন?
এমান্ডা: চালিয়ে নেন, জো?
প্রো: এই প্রশ্নটাকে এখানে এবং এখনই নিষ্পত্তি করতে হবে।
এমান্ডা: ‘‘একেবারে চিরদিনের জন্য’’
(সবাই হেসে উঠবে কিন্তু প্রো ভীষণ রেগে দাঁড়িয়ে যাবে)
প্রো: এ রকম অবিরাম নির্বুদ্ধিতার ভেতর থাকতে পারি না আমি। দেশের প্রধানমন্ত্রী না হয়ে বরং কুকুর হওয়া ভালো ছিল আমার, যেখানে ফুটবল আর আমোদ-প্রমোদই একমাত্র বিষয় যাতে সাধারণ মানুষেরা গুরুত্ব দিতে পারে। আরামে থাকুন রাজার জুতোর ভেতর: সবাই এটার উপযুক্ত আপনারা [সবেগে বের হয়ে যাবেন]
ব্যাল: তাহলে এটা ঘটালেনই আপনি, ম্যান্ডি। আশা করি নিজেকে নিয়ে গর্ব করতে পারেন এবার।
ম্যাগ: তুমিই এমান্ডা, হ্যাঁ, তোমারই যাওয়া উচিত, এবং তোষামোদ করে ওকে ফিরিয়ে আনা উচিত। কিন্তু ধরে নিচ্ছি এটা করতে হবে আমাকেই, সচরাচরের মত। মাপ করবেন, ভদ্রমহিলা, এবং ভদ্রমহোদয়গন।
(তিনি উঠবেন, বাকি সবাই উঠবেন, বেরিয়ে যাবেন তিনি)
বোনা: আপনাদের বলেছি আমি, বলেইছি তো আপনাদের, যে রাজার সঙ্গে একটা অধিবেশন করে কি হবে। একটা ধূমায়িত কনসার্ট পরিচালনা করা এটা, ঘেন্না এসে গেছে আমার। (চেয়ারে এগিয়ে বসবেন তিনি)
ব্যাল: বুড়ো শেয়ালটাকে কোনায় ঠেলে নিয়ে যাচ্ছিলাম কেবল, আর ঠিক তখনই বোকার হাসির প্রয়োজন পরল এমান্ডার, আর বেরিয়ে যেতে দিল ওকে। (বসবেন তিনি)
নিকো: এখন কি করার আছে তোমার এমান্ডা? জানতে চাই।
এমান্ডা: [অসংশোধনীয়ভাবে] ছোট্ট করে একটা দলীয় সংগীত গাওয়ার প্রস্তাব দিতে পারি [সংগীত পরিচালকের অঙ্গভঙ্গি ইঙ্গিত করবে]
নিকো: হু-হ্ !! [ভীষণ রেগে যেয়ে বসে পড়বে]
এমান্ডা: [হাসির দমক তুলে বসে পড়বে] !
ক্র্যা: [চিন্তিতভাবে] সহজ হোন, বন্ধুগন, জো জানেন, কি নিয়ে আছেন তিনি।
লী: অবশ্যই তিনি জানেন। আপনাকে ক্ষমা করতে পারি আমি, বিল, কারণ ক্যাবিনেটে আজকেই প্রথম দিন আপনার। কিন্তু অন্য সবাই যদি এরি মধ্যে বুঝতে না পারে যে জো’র প্রচণ্ড রাগ দেখানো অতি-অবশ্যই হিসেব-কষা, তাহলে কোনো কিছুই আর আপনাদেরকে শিক্ষা দিতে পারবে না কখনো। [অবজ্ঞাভরে বসে পড়বে]
বোনা: [ওর খাসা ভঙ্গিতে] ঠিক আছে, ম্যাডাম, জানি একজন নবাগত আমি; সব কিছুর একটা শুরু অবশ্যই আছে, যে কেউ প্রশ্ন করতে পারে আমাকে, দোষী সাব্যস্ত করতে পারে। প্রধানমন্ত্রী একটা প্রসঙ্গ এনেছিলেন এই অধিবেশনে, যেটাতে খুব সক্ষম ও দৃঢ় মনোভাব পোষণ করে সিদ্ধান্তটার প্রায় প্রান্তে পৌঁছেছিলাম, আর ঠিক তখনই একটা বালখিল্য মেজাজ দেখিয়ে অধিবেশনটা পণ্ড করে দিলেন, বোকার মত অবস্থায় আমাদের রেখে উঠে গেলেন, যখন কোনো কিছুই আর ঘটানো যায় না। আর আপনি বলছেন যে একটা উদ্দেশ্য নিয়েই এটা করেছেন তিনি! এ রকম একটা নাটক করায় কি সুবিধে হল ওর? জবাব দিন, দয়া করে।
লী: আমাদেরকে পেছনে রেখে রাজার সঙ্গে ফয়সালা করছেন এটা। ছলে অথবা বলে, যেভাবেই হোক, এটা করার উদ্ভাবন করবেই জো।
প্লি: এটা করার ব্যবস্থাটা আপনিই করে দেন নি, ম্যান্ডি: করেছেন কি?
এমান্ডা: এটা ব্যবস্থা করার কোনো প্রয়োজন ছিল না। সব সময়ই আমাদের কারো না কারো উপর ভরসা করতে পারে জো, যে কিছু বললেই ওর চলে যাওয়ার কারণ সৃষ্টি হয়।
ক্র্যা: আমার মতে, ভদ্রমহিলা ও ভদ্রমহোদয়গণ, আমাদের করণীয় খুব সামান্যই করেছি এ পর্যন্ত, বাকিটা জো’র জন্যই থাক। এমন এক অবস্থানে পৌঁছেছিল বিষয়টা যেখানে সংসদ ও রাজাকে হ্যাঁ অথবা না বলতে হয়। এখানে শুধু এক ধরনের কমিটি আছে, যা কিনা দু’টার এক কমিটি থেকে অন্তত ভালো; এবং ওটা হচ্ছে একটার এক কমিটি। ওয়ার্ডসওয়ার্থের কবিতার মত, আমরা সাতজনা–
লী: আটজনা।
ক্র্যা: ঠিক আছে, সাত অথবা আট, চূড়ান্ত হাতাহাতির জন্য সংখ্যায় অনেক বেশি আমরা। বিষয়টার মূলে দুইজন দৃঢ় থাকা আর আটজনের সবার বাজার বসানোর মধ্যে, আগেরটাই অপেক্ষাকৃত ভালো। অতএব আমার পরামর্শ হচ্ছে এখানেই শান্ত হয়ে বসে থাকি যে পর্যন্ত না জো ফিরে আসে এবং বলে যে ব্যপারটার মীমাংসা কীভাবে করা হয়েছে। সম্ভবত একটা গান গেয়ে আমাদের পরিতৃপ্ত করবে এমান্ডা। [আসনে বসে পড়বে]
(প্রোটিয়াসকে নিয়ে ফিরে আসবেন রাজা, বিষণ্ন দেখাবে তাঁকে। উঠে দাঁড়াবে সবাই। নীরবে ওদের আসনে বসবে দু’জনে। অন্যেরাও বসবে।)
ম্যাগ: [খুব গম্ভীরভাবে] বিষয়টার একটা দিক নিয়ে একান্তভাবে আলোচনার জন্য খুবই সদয় ছিলেন প্রধানমন্ত্রী, এটা পরিষ্কার হয়েছে এখন। যদি চরমপত্রটা মেনে না নেই তাহলে আপনাদের সবার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করব আমি; হাউস অব কমন্সে তাঁর ব্যাখ্যামূলক বক্তৃতা থেকে দেশবাসী জানতে পারবে যে মন্ত্রীপরিষদ-শাসিত সরকার অথবা রাজতন্ত্র সরকারের মধ্যে যে-কোনো একটাকে বেছে নিতে হবে তাঁদের: এ বিষয়ে, খোলাখুলিভাবে আমি বলব যে, জয়ী হতে যেয়ে বরং দুঃখিত হওয়া উচিত আমার, একদল মন্ত্রীর সমর্থন ছাড়া কোনো কিছুই করতে পারি না আমি, কারণ তাদের অস্তিত্ব ইংরেজ জনগণের কাছে নিজস্ব সরকারের অনুভূতি দেয়।
এমা: [তাড়াহুড়ো করে অস্পষ্টভাবে কিছু বলবে]!
ক্র্যা: [ফিসফিসিয়ে] চুপ করবে; নাকি করবে না?
ম্যাগ: [চালিয়ে যেতে থাকবে] স্বভাবতই এ রকম একটা দ্বন্দ্ব মিটিয়ে ফেলতে চাই, এটার সফলতা ক্ষতিগ্রস্থ করবে আমাকে, আর বিফলতা অক্ষম করে দেবে। আপনারা বলছেন যে এ রকমটা করতে পারি আমি কেবল একটা জিম্মাচুক্তি স্বাক্ষর করে, এটা আমাকে একজন মামুলি, রাজকীয় তত্বাবধায়ক প্রভু রূপে প্রতিষ্ঠিত করবে। এমন কি যে স্বেচ্ছাচারিতা একটা মঞ্চে দেখানো যায়, তাও থাকবে না আমার। সব চেয়ে নিচের স্তরের বিষয়গুলোর নিচে ডুবে থাকতে হবে আমাকে। আমার একমাত্র বিশেষ সুবিধে এই যে যখন সরকারের কোনো কু-ব্যক্তি প্রতিশোধ নেয়ার চেষ্টা করে তাকে সরিয়ে ফেলা। কীভাবে নিজেকে রক্ষা করি আমি? আপনারা তো অসংখ্য: মাত্র এক হাতে আপনাদের সবাইকে বাধা দেই। একটা সময় ছিল যখন রাজা অভিজাত সম্প্রদায় এবং কৃষি পুঁজিপতি-বুর্জোয়াদের সমর্থনের উপর নির্ভর করতে পারত। আজকের দিনে একজন অভিজাতও রাজনীতির সঙ্গে সংযুক্ত নেই, পেশাদার একজন সদস্যও নেই, বড় ব্যবসা বা আর্থিক বিষয়ে নেতৃত্ব দেয়ার মত একজন প্রতিনিধিও নেই। অতীতের যে-কোনো সময়ের চেয়েও বেশি ধনী ও ক্ষমতাশালী ওরা এখন। এমন কি আগের চেয়ে অনেক বেশি সামর্থ্য, ও বেশি শিক্ষিত। ওদের একজনও এই সরকার চালানোর মজুরগিরি স্পর্শ করবে না। তথাকথিত এই ‘জনগণের কাজ’ কখনো শেষ হতে পারে না কারণ আর দশটা নতুন কাজ সৃষ্টি না করে হাতের একটাও শেষ করতে পারি না আমরা। এ জন্য কোনো ধন্যবাদও পাই না আমরা, কারণ এসবের নিরানব্বুইটাই জনগণের কাছে অচেনা, অজানা। বাকি একটায় বিরক্তি প্রকাশ করে ওরা, কারণ ওদের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ অথবা কর বাড়ানোর মত অস্বস্তিকর অবস্থার সৃষ্টি করে ওটা। সব চেয়ে শক্তিশালী মানুষটাকে, এমনকি সব চেয়ে শক্তিশালী মহিলাটিকেও পাঁচ অথবা ছয় বছরের মধ্যে জীর্ণ করে দেয় এটা। এক ধরনের শূন্যতার দিকে নিয়ে যায় এটা, বরং ছুটি কাটিয়ে যখন চাঙ্গা হয়ে আসি আমরা, এবং যে-কোনো কাজ করার জন্য যথেষ্ট সমর্থ থাকি। আবার কখনো অদৃষ্টপূর্ব কিছু আকস্মিক মহাদুর্ঘটনার মধ্য দিয়ে একটা অভিভূতকারী উত্তেজনার মধ্যে জেগে উঠে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়ার শেষ সীমায় পৌঁছে যাই যখন আমাদের প্রয়োজন পরিপূর্ণ বিশ্রাম ও ঘুম। এই মজুরগিরি, মনে রাখবেন, এটা হচ্ছে একটা শ্রমসাপেক্ষ ব্যবসা, একমাত্র এটাই এই দেশে ফেলে রাখা হয়েছে। আমার নাগরিক তালিকা কোটিপতিদের মধ্যে একজন দরিদ্র মানুষ হিসেবে টুকে রেখেছে আমাকে। আপনাদের যে কেউ সাংগঠনিক এবং প্রশাসনিকভাবে সমর্থ হলে এই শহরে দশ গুণ বেতন উপার্জন করতে পারেন। ইতিহাস বলে যে প্রথম লর্ড চ্যান্সেলর, যিনি নগর পরিষদে উলের ব্যবসা নিষিদ্ধ করেছিলেন, আজকের দিনে এই জাতি সমভাবে বিস্মিত হবে যদি তার মত সামর্থবান একজন ব্যক্তি এটা চিন্তা করে যে উলের ব্যাগ বরং ভালোই হবে, এমন কি একজন অফিস পিয়নের উপরে ওঠার লক্ষ্যে এটা সিঁড়ির মত কাজ করবে। আমাদের কোনো কাজকর্মের প্রতি শ্রদ্ধা পোষণ করাও হয় না এমনকি। প্রতিভাবান ব্যক্তিরা নোংরা কাজ হিসেবে দেখে এটাকে। কোনো বিখ্যাত অভিনেতা কি ওর মঞ্চ বদলাবেন? কোনো নাম করা ব্যরিস্টার কি তার আদালত পাল্টাবেন? অথবা কোনো বিখ্যাত ধর্ম-প্রচারক কখনো মঞ্চ ছেড়ে দেবেন? অথচ আমাদের রাজনৈতিক ক্রীড়াক্ষেত্রে সংসদের বুদ্ধুদের নিয়ে অথবা নির্বাচনী এলাকার অজ্ঞ ভোটারদের নিয়ে নোংরামী ও দলাদলির জন্য সংগ্রাম করতে হয়! বিজ্ঞানীদের কিছুই করার নেই আমাদের নিয়ে; রাজনৈতিক পরিবেশের জন্য বৈজ্ঞানিক পরিবেশ নয়। এমনকি রাজনীতিবিজ্ঞান, যে বিশ্বাস দ্বারা সমাজ সভ্যতা অবশ্যই টিকে থাকে বা ধ্বংস হয়ে যায়, তাও অতীত বিষয়ক ব্যাখ্যা করতে ব্যস্ত যখন আমাদেরকে বর্তমানই কেবল আঁকড়ে থাকতে হয়: আমাদের পেছন দিকের প্রতিটা কোনার সকল বস্তুকে আলোকিত করে এটা অথচ সামনের দিকে পায়ের তলার মাটিটাই গাঢ় অন্ধকারে ঢেকে রাখে। দেশের সকল প্রতিভা ও মেধাসম্পন্নদের অনোপার্জিত অর্থের বন্যায় কিনে ফেলা হয়েছে। ঐ বিষাক্ত সম্পদের প্রাচুর্যে প্রতিভা এবং মেধাসম্পন্নরা এমন বিভবে বাস করে ধনীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছে যে দেশের জন্যও আমরা ততটা সেবা দিতে সক্ষম হই না। রাজনীতি এক সময় সামর্থবানদের আকর্ষণের কেন্দ্রে ছিল। জনগণের চেতনা ও লক্ষ্য বর্তমানে কিছু বক্তৃতা-বিশেষজ্ঞ ও দলীয় ষড়যন্ত্রকারীদের উৎপাদনশীল ক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। প্রকৃত সামর্থ না থাকার ফলে যাদের উন্নতির সকল পথ বন্ধ অথবা দারিদ্র ও শিক্ষাগত যোগ্যতা না থাকার ফলে তাদের দ্বারা অন্য কিছুই করা সম্ভব না ওরাই এসে ভিড় করেছে রাজনীতিতে। আরো একটু যোগ করে বলি, তাদের ঘৃণিত অত্যাচার, অবিচার, নিজস্ব ছলচাতুরি অস্বীকার ও নিজেদেরকে পেশাদার বলে যে দাবি তারা করে তার কোনটা সত্য আর কোনটা মিথ্যা তা বোঝা মোটেও কষ্টসাধ্য না, ইতিহাস একজন ভদ্র রাষ্ট্রনায়ক সম্পর্কে বলে যে তিনি ঘোষণা দিয়েছিলেন– এমন লোকেরা সরকার পরিচালনার অনুপযোগী। এক বৎসরের মধ্যেই এটা আবিষ্কৃত হয়েছিল যে-কোনো ব্যক্তিই এদের মত এ কাজটা চালিয়ে যেতে পারে। তখনই সরকার পরিচালনাকারী পুরাতন মহলের রাজনীতি পরিহার করা শুরু হয়, যার শেষ হয়েছিল প্রতিটা পরিষদেই। রক্ষণশীলেরা উন্নয়নশীলদের চেয়ে কোনোভাবে কম যায় না, ঐ সকল দিনে ‘হঠকারী শ্রমিক পরিষদ’ নামে অভিহিত হয়েছিল। ভুল বুঝবেন না আমাকে: আমি চাই না পুরোনো মহল আবার ফিরে আসুক। এত স্বার্থপরতার সঙ্গে কাজ করছিল এটা যে যদি গনতন্ত্র এসে রাজনীতি থেকে এদেরকে তাড়িয়ে না দিত তাহলে জনগনই হয়তো বিলুপ্ত হয়ে যেত। শয়তানীর এত পথ আছে যে জনপ্রিয় অজ্ঞতা ও জনপ্রিয় দারিদ্রতার অত্যাচারের মধ্যে এটা টিকে যেতে পারে। এই পরিস্থিতিতে একমাত্র রাজাই এখন দাঁড়াতে পারে অত্যাচারের উর্ধে। ভয়াবহভাবে এটার বিষয়বস্তু কিন্তু আপনারা। প্রতিবাদ ও উত্তেজিত করা সত্বেও আপনারা এখনো স্কুলগুলোর নেতৃত্বে হাত দিতে সাহস করেন নি। আপনাদের দুর্ভাগা শিশুদেরকে কুসংস্কার ও পূর্ব-সংস্কার প্রভৃতি বিষয়গুলোকে আবৃত্তি করানো থেকে বিরত রাখতে পারেন নি যা কিনা সামনে চলার প্রতিটা পথে পাথরের দেয়ালের মত দাঁড়িয়ে থাকে। আমাকে নিচু করার প্রচেষ্টায় তাদের নিকট আপনাদের নিজস্ব গোলামি সম্পর্কে কি আপনারা কোনো সুস্পষ্ট পরামর্শ পেয়েছেন? এসবের উর্ধে না দাঁড়াতে পারি আমি তাহলে মোটের উপর আমার অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার কোনো কারণই থাকে না। ভবিষ্যতের জন্য টিকে থাকি আমি, এবং অতীতের জন্যও। এমনকি ঐ সকল বংশধরদের জন্য যাদের কোনো ভোট নেই, ঐসব ঐতিহ্যের জন্য যার কোনোটাই কখনো ছিল না। বস্তুনিরপেক্ষতার জন্য সংগ্রাম করি আমি: বিবেক ও পবিত্রতার জন্য, অপকৌশলের বিরুদ্ধে সনাতনের জন্য, বর্তমান ঔদারিকতার বিরুদ্ধে ক্রমবিকাশমান ক্ষুধানিবৃত্তির জন্য; মেধাসম্পন্ন ন্যয়পরায়ণতার জন্য, মানবতার জন্য, ব্যবসায়িক আগ্রাসন হতে শিল্পসমূহকে এবং পেশাদারিত্ব হতে বিজ্ঞানকে রক্ষা করার জন্য। সব কিছুর জন্য, যা আপনারা ইচ্ছা করেন যেমন বিস্বস্তভাবে, আমিও ওরকম ইচ্ছাই পোষণ করি। কিন্তু আপনাদেরকে প্রেসের চামড়ার ফিতা দিয়ে বেধে রাখা হয়, যাতে ভোট দেয়া জনতার অজ্ঞতা ও কুসংস্কার, ভীরুতা ও বিশ্বাসপ্রবণতা, ঠকবাজী ও বিনয়ীভাব, ঘৃণিত ও আক্রমণাত্মক আবেগ, এবং ক্ষমতা থেকে আপনাদেরকে ছুঁড়ে ফেলা, এসব বিষয়গুলো আপনাদের বিপক্ষে সংগঠিত করা যায় যদি আপনারা ঐ সকল দুঃসাহসীদের বিরুদ্ধে একটা শব্দও উচ্চারণ করেন যা তাদেরকে অসন্তুষ্ট অথবা অসতর্ক করে যাদের পকেটে রয়েছে প্রেস। আপনারা এবং ঐ অত্যাচার– এর মাঝখানে রয়েছে সিংহাসন। ভীত হওয়ার জন্য কোনো নির্বাচন আমার নেই; এবং যদি কোনো সংবাদপত্রসেবী রতœ আমার বিপক্ষে কিছু বলতে সাহস করে, তাহলে ঐ রতনের বাহারী স্ত্রী এবং বিবাহযোগ্যা কন্যাগন অনতিবিলম্বে তাকে বুঝিয়ে দেবে যে, অদ্যাবধি, রাজার অসন্তুষ্টি হল সেইন্ট জেইমসের প্রাসাদে দেয়া সামাজিক মৃত্যুদণ্ড দেয়ার সমতুল্য। ঐ কাজগুলোর কথা ভাবুন যা করতে ভয় পান আপনারা, ঐ ব্যক্তিদের কথা ভাবুন যাদের বিরুদ্ধাচরণ করতে ভয় পান! কিন্তু একজন রাজা? তিনি কিন্তু তার ক্ষুদ্র সাহস নিয়ে ওদের সামলাতে পারেন। আপনাদের কোমর ভেঙ্গে ফেলার মত দায়ীত্বগুলো একজন রাজা এখনো তার কাঁধে বহন করতে পারেন। সেক্ষেত্রে অবশ্যই একজন রাজা হতে হবে তাঁকে, পুতুল নয়। মনে রাখবেন, রাজা হিসেবে একজন পুতুল অধিষ্ঠিত থাকলে তার দায়ীত্বগুলো নিতে হবে আপনাদেরকেই। আমাকে সমর্থন করা যখন অব্যাহত রাখবেন আপনারা, একটা পৃথক ও স্বাধীন কর্মক্ষেত্রের পরিধির মধ্যে, তখন আপনাদের বলির পাঠা আমি! আমাদের জনপ্রিয় আইনগুলোর সকল সুখ্যাতি অর্জন করেন আপনারা, এর বিপরীতে অজ্ঞ ও জনপ্রিয় বিক্ষোভ-প্রদানকারী ঘৃণা ও বাধাগুলো রেখে দেন আমার জন্য। আপনাদের জিজ্ঞাসা করি, আপনাদের শেষ অস্ত্র ছোঁড়া ও আমাকে ধ্বংস করার আগে, যে আমাকে ছাড়া আপনাদের অবস্থান একবার বিবেচনা করুন। একবার ভাবুন: দু’বার ভাবুন: আপনাদের বিপদের জন্যই ভেবে দেখুন। এ জন্য নয় যে আপনাদেরকে পরাস্ত করতে পারি আমি, যদি প্ররোচিত করেন তাহলে আমার সফলতাই নিশ্চিত।
লী: চমৎকার!
এমান্ডা: খুব সুন্দর বলেছেন, স্যার।
ব্যাল: [অসন্তুষ্টভাবে বিড়বিড় করে] সবই খুব ভালো, কিন্তু আমার শ্যালক মাইক-এর ব্যপারটার কি হবে?
লী: [পাগলের মত] আহ্, গোল্লায় যাক তোমার শ্যালক মাইক!
বোনা: অর্ডার! অর্ডার!
লী: [রাজার প্রতি] আমি আপনার ক্ষমা প্রার্থনা করছি, স্যার; কিন্তু প্রকৃতপক্ষে– এরকম একটা মুহূর্তে–
[কথা হারিয়ে ফেলবে]

(চলবে)

Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *