সত্তর দশক

images0XT48L5Vঅংকুর সাহা

।।১।।

ধুলি ওড়ে, ছাই ওড়ে,  ভবিষ্যত গাঢ় অন্ধকার
তীর্থের কাকের মত খোঁচর পাহারা দেয় চকে;
ধর্ম শান্তি রক্ষা ছেড়ে একশো বারো মাইনের পুলিশ-
লক আপে জাঁকিয়ে আসে, তলপেটে বুটের লাথি কষে।

মা-বাবা হাপুস কাঁদে, কোথায় সোনার টুকরো ছেলে?
সে চলে গিয়েছে বনে, গড়বে লাল বিন্দু, মুক্তাঞ্চল;
দুচোখে গভীর স্বপ্ন- আদর্শবাদের পূর্ণ আশা
মোদো মাতালের নেশা- তত্ত্ব, তথ্য, বোমা পাইপগান।

ঝলসে ওঠে মুখে চোখে অসহায় বোবা আর্তনাদ
দুধে ভাতে রাখবে কেন, আলো দাও, তুলে নাও কোলে;
দেয়ালে দেয়ালে লেখা ভ্রাতৃঘাতী, অবাধ্য স্লোগান
অজ্ঞাতবাসের পথে বুকের প্রণম্য চিতা জ্বলে ।

শাদ এরা, কালো ওরা, লাল তুমি, গোলাপি অনেকে
সকলে আকাশে চায়, কেউ শোভা, কেউ রক্ত দেখে।

।।২।।

বন্ধুরা অনেকে মৃত, অনেকে জানে না বেঁচে আছে
ডাল, ভাত, শিশু, জায়া সম্পদের নিত্য উষ্ণতায়;
আমাদের দিবাস্বপ্ন: পোস্টার টাঙানো ছিল গাছে
হৃৎপিণ্ড উদার ছিল, চারমিনারে পুষ্টির উপায়।

প্রত্যেক সকাল ছিল উৎসুক উৎসব, ঝলমলে;
সুদীর্ঘ দুপুরে ছিল সমুদ্যত শিক্ষা, সম্ভাবনা
ক্লাসে, ল্যাবে, জনকোলাহলে, বাসে; নিবিড় সন্ধ্যায়
গৃহশিক্ষকতা সেরে চায়ের ধোঁয়ায় আলোচনা।

শরৎচন্দ্রকে ছুঁড়ে ফেলে দাও, স্বর্ণমিত্র পড়ো;
অসীম, সন্তোষে, কানু, পুল্লা রেড্ডি, চারু মজুমদার-
এঁদের নেতৃত্বে যদি বিপ্লব নিভৃত পায়ে আসে
আমাদের দেশে হবে সুশাসনে, উত্তম উদ্ধার।

এখন পৃথিবী ছেড়ে খুব দ্রুত পাখি উড়ে যায়
আকাশ ছেয়েছে ভস্মে আর্দ্র চোখ খোলা জানালায়।

Facebook Comments

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।